May 13th, 2016

2ক’দিন আগে নাসার স্পেস এপস বানানোর প্রতিযোগিতায় গিয়েছিলাম, শেষ রাউন্ডের। এই প্রতিযোগিতা সম্ভবত দুইবছর ধরে হচ্ছে। নাসার উদ্দেশ্য সহজ – ট্যালেন্ট হান্টিং। ওখানে যোগ দেওয়ার আমাদের উদ্দেশ্যও সহজে বোঝা যায় – ট্যালেন্ট নার্সিং।

তো, সারাদেশ থেকে ধাপে ধাপে উত্তীর্ণ হয়ে মোট ২৪০ জন , যার মধ্যে পাঁচজন মেয়ে, ঢাকায় এসেছে। তারপর ওদের ফাইনাল প্রেজেন্টেশন, বিভাগওয়ারী। আমি রাজশাহী  বিভাগের বিচার কাজ করেছি। ফলে চট্টগ্রামের তিন তরুনের বানানো MartianOasis (মঙ্গলে মরুদ্যান) এপটি আমার দেখা হয়নি। দুইদিন আগে কেও একজন আমাকে একটা মেসেজ দিয়ে জানায় যে, এই এপটি পপুলার চয়েসের জন্য নির্বাচিত হয়েছে। তবে, সেই মেইলটি আদার বক্সে থাকায় আমার নজর পড়ে নি। এর মধ্যে নাসা স্পেস এপ প্রতিযোগিতা যার হাত ধরে বাংলাদেশে এসেছে সেই মাহী জামানের মেসেজ পেয়ে কাল থেকে এই ক্যাম্পেইনে নেমে পড়েছি।

মার্টিয়ানওয়েসিস নামের এপটি সম্পর্কে এখানে  বিস্তারিত জানা যাবে। ভিডিও  টা

তো পপুলার চয়েস মানে হলো ভোট দেওয়ার সুযোগ।

মার্টিয়ানওয়েসিস ১৬১টি এপ থেকে বিচারকদের দৃষ্টিতে ২৫টি ভোটের জন্য বাছাই করার একটি। এশিয়া থেকে কেবল জাপানের একটা আছে। বাকী সবই অ-এশীয়। এর মধ্য থেকে ৫টিকে ফাইনালের জন্য মনোনীত করা হবে ভোটের মাধ্যমে।

তার মানে আমরা চাইলেই টট্টগ্রামের এই প্রোজেক্টকে জিতিয়ে দিতে পারি।

ভোট দেয়ার পদ্ধতিঃ
https://2016.spaceappschallenge.org/ লিংকটিতে গিয়ে একটি অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। একাউন্ট খোলার জন্য একটা ই-মেইল লাগবে, আর কিছু না। একাউন্ট খুললে ই-মেইলে একটা
 ভেরিফিকেশন পাঠাবে সেটা দিয়ে একাউন্ট একটিভেট হবে। তারপর  https://2016.spaceappschallenge.org/vote এই লিঙ্কে গিয়ে #MartianOasis কে ভোট দিতে হবে।

একবার রেজিস্ট্রেশন করে ফেললে সরাসরি নিচের লিংকেও ভোট দেওয়া যাবে। 
https://2016.spaceappschallenge.org/challenges/mars/simspace/projects/martianoasis

যারা মোবাইল থেকে ভোট দিতে চান, তারা ফেসবুকের এই লিংকটা দেখে আসতে পারেন। সেখানে সহজভাবে ব্যাপারটা ব্যাখ্যা করা হয়েছে।
1

২০ তারিখ পর্যন্ত ভোট দিতে হবে, প্রতিদিন একটি করে।

 

আশা করি, পড়তে পড়তে আপনার ভোটটা দিয়ে দিয়েছেন। ধন্যবাদ আপনাকে।

 

আরও পড়তে পারেন:
আরব বসন্ত‌ের সূচনা
আসুন তাজুলের পাশে দাড়াই
আমার যতো পুরানো বই
দশে মিলে করি কাজ!!!
আপনাকে অভিবাদন স্যার হরিপদ কাপালী