February 9th, 2018

টুইটারের সিইও

“রাতারাতি” সাফল্যের জন্য এক দশক ধরে অপেক্ষা করতে হয়। মাইক্রোব্লগিং সাইট টুইটারের বেলায় কথাটা সত্য হলো প্রায় ১২ বছর পর। গতকাল প্রাশিত ২০১৭ সালের চতুর্থ প্রান্তিকে প্রথমবারের মতো টুইটারের রেভেনিউ তার খরচকে ছাপিয়ে গেল। বিনিয়োগকারীরা ব্যাপারটাকে ভালভাবেই নিয়েছে ফলে সারাদিনে শেয়ারের দাম বেড়েছে ১৬%।

টুইটারের এই মুনাফার নানান দিক আমরা দেখতে পারি।

১. মুনাফা কিন্তু ব্যবসার বৃদ্ধি থেকে আসে নাই! মুনাফা এসেছে খরচ কমানো থেকে। গত বছরের তুলনায় রাজস্ব বেড়েছে মাত্র ২% আর ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে মাত্র ৪%। এমনকি গত তিনমাসে নতুন কোন ব্যবহারকারীও সে অর্থে যুক্ত হয়নি। কিন্তু কোম্পানি তাদের খরচের খাতও বাড়াইনি। কেবল মাসে ৩৩০ মিলিয়ন ডলারের খরচটা ধরে রেখেছে।  ফলে মোট মুনাফা হয়েছে ৯১ মিলিয়ন ডলার।

আইটি কোম্পানিগুলোর খরচের খাত যেখানে হাত দেওয়া যায় সেগুলো হলো কর্মীদের শেয়ারের মাধ্যমে বেতন দেওয়া, গবেষণা ও উন্নয়ন এবং  বিক্রোয় ও বিপনন। তিন খাতেই উল্লেখযোগ্য কাজ করেছে টুইটার। স্টক বেজড কম্পেন্সেশন কমিয়েছি ২৬%, আর এন্ডডি খরচ কমিয়েছে ৩৫% আর মার্কেটিং-এর খরচ কমিয়েছি আগের প্রান্তিকের চেয়ে ৭০%!!!

এ কারণেই তাদের মুনাফা হয়েছে।

টুইটারের এই মুনাফা প্রাপ্তির পেছনে রয়েছে সেই চিরকালিন প্রচেষ্টা – খরচ কমাও।

টুইটারের মার্কেট ক্যাপ প্রায় ২৩ বিলিয়ন ডলার এবং এখন শেয়ারের দাম -৩০.১৮ ডলার।

আরও পড়তে পারেন:
আমাদের চমক হাসান
৫০০ কোটি ডলারের সাধ ও সাধ্য
অনুপ্রেরণার গল্প-১ : বাঁ হাতেই বিশ্বজয়
১৬০০ দক্ষ লোকের সন্ধানে!!!
বইমেলার বই-১৩: "বিক্রয় হবেঃ বাচ্চার জুতো, কখনো পড়েনি